বুধবার, ০৬ জুলাই ২০২২

ভূমিকম্পে ধ্বংসস্তুপ আফগানিস্তান, খোঁজ মিলছে না অনেক পরিবারের

শেয়ার করুন

শক্তিশালী ৬ দশমিক ১ মাত্রার ভূমিকম্পে আফগানিস্তানে এক হাজারের বেশি মানুষের প্রাণহানি ঘটেছে। বুধবার গভীর রাতে আফগানিস্তানের পাকতিকা ও খোস্ত প্রদেশে এই ভূমিকম্পে আহত হয়েছেন আরও দেড় হাজারের বেশি।

দেশটির ক্ষমতাসীন তালেবানের প্রধান হাইবাতুল্লাহ আখুন্দজাদা বলেছেন, শত শত বাড়িঘর ধ্বংস হয়ে গেছে এবং মৃত্যুর সংখ্যা আরও বাড়তে পারে। ভূমিকম্পের পর থেকে শত শত পরিবার এখনও নিখোঁজ রয়েছে।

মার্কিন ভূতাত্ত্বিক জরিপ সংস্থা (ইউএসজিএস) বলছে, বুধবার গভীর রাতে আফগানিস্তানের দক্ষিণপূর্বাঞ্চলের প্রত্যন্ত পার্বত্যাঞ্চলীয় খোস্ত প্রদেশ থেকে ৪৪ কিলোমিটার দক্ষিণপশ্চিমে পাকিস্তান সীমান্তের কাছে ভূপৃষ্ঠের ৫০ দশমিক ৮ কিলোমিটার গভীরে ভূমিকম্পটির উৎপত্তি হয়েছে।

আন্তর্জাতিক বিভিন্ন সংবাদ সংস্থার ছবি এবং ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে, ভূমিকম্পে খোস্ত এবং পাকতিকা প্রদেশে অসংখ্য বাড়িঘর ধ্বংসস্তুপে পরিণত হয়েছে। তালেবানের কর্মকর্তা ও বিভিন্ন দাতব্য সংস্থার সদস্যরা ধ্বংসস্তুপের নিচ থেকে লোকজনকে উদ্ধার করছেন। পরে আহতদের হেলিকপ্টারে করে রাজধানী কাবুল এবং অন্যান্য শহরের হাসপাতালে নেওয়া হচ্ছে।

ব্রিটিশ বার্তা সংস্থা রয়টার্সের শেয়ার করা একটি ভিডিওতে দেখা যায়, কয়েকজনকে কম্বলে ঢেকে ভূমিকম্প আক্রান্ত এলাকা উদ্ধারের পর হেলিকপ্টারে করে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে।

দেশটির স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তা সালাহউদ্দিন আইয়ুবী বলেছেন, উদ্ধার কাজ পরিচালনা, আহতদের কাছে চিকিৎসা সামগ্রী এবং খাদ্য পৌঁছানোর জন্য হেলিকপ্টার মোতায়েন করা হয়েছে। তিনি বলেছেন, কিছু গ্রাম পাহাড়ের প্রত্যন্ত অঞ্চলে হওয়ায় মৃতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে এবং এই বিষয়ে বিস্তারিত তথ্য সংগ্রহ করতেও কিছুটা সময় লাগবে।

মৃত্যুর সংখ্যা নিশ্চিত করে পাকতিকার তথ্য ও সংস্কৃতি পরিচালক মোহাম্মদ আমিন হোজাইফা রয়টার্সকে বলেছেন, ‘১ হাজার মানুষ মারা গেছেন এবং আহত হয়েছেন দেড় হাজার। তবে এই সংখ্যা অবশ্যই বাড়বে। কারণ অনেক পরিবারের খোঁজই মিলছে না।’ আহতদের উদ্ধার করে রাজধানী কাবুল এবং গার্দেজ শহরে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে।

শেয়ার করুন »

লেখক সম্পর্কে »

মন্তব্য করুন »

Translate »