চোখ যেন পায় বিশেষ যত্ন


বাংলাদেশের কণ্ঠ ডেস্ক প্রকাশের সময় : এপ্রিল ৩, ২০২৩, ৩:৪৫ অপরাহ্ন /
চোখ যেন পায় বিশেষ যত্ন

আজকালের কন্ঠ ডেস্ক : মুখের দাগছোপ, অ্যাকনে, শুষ্কতা, তৈলাক্তভাব, ঠোঁটের যত্ন, সব নিয়েই আলোচনা হয়েছে। কিন্তু চোখের যত্নে আলাদা করে ভেবেছেন কখনো? মুখের আর পাঁচটা অংশের তুলনায় চোখ অনেক বেশি সংবেদনশীল এবং তার আশপাশের ত্বকের বাড়তি যত্ন নেওয়া দরকার, সমস্যা থাক বা না থাক। সে পরামর্শ নিয়েই এবারের আলোচনা।

কেন যত্ন নেবেন?

মুখের সবচেয়ে কোমল অংশ চোখ এবং তার চারপাশের ত্বক। যা মুখমন্ডলের অন্যান্য অংশের তুলনায় প্রায় ৩০ শতাংশ বেশি পাতলা হয়ে থাকে। আমরা সাধারণত যেসব ক্লিনজার, স্ক্রাব বা ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার করি, তা চোখের ত্বকে সমান কার্যকরী নয়। অনেক সময় পুরো মুখে শুষ্কতা না থাকলেও চোখের নিচের ত্বকে ড্রাই প্যাঁচ দেখা দেয়। বা ঘুমের একটু এদিক-ওদিক হলেই চোখ ফুলে যায়, কালচেভাব বেড়ে যায়। তাই তো দৈনন্দিন রূপচর্চায় চোখকেও সমান গুরুত্ব দেওয়া উচিত। পাশাপাশি প্রতিদিনের রূপরুটিনে অন্তত পাঁচ মিনিট চোখের জন্য বরাদ্দ রাখুন। এবং ত্যাগ করুন কিছু অভ্যাস, এটুকুই যথেষ্ট।

কী করবেন?

মানব শরীরের ছোটখাটো সমস্যা থেকে ত্বকের অযত্ন বা বড় কোনো রোগ, সবই ফুটে ওঠে চোখের মাধ্যমে। আগেই বলেছি, চোখের ত্বক অনেক বেশি নরম এবং কোমল। তাই এর ময়েশ্চারাইজারও হতে হবে আলাদা। সকালে এবং রাতে পরিষ্কার ত্বকে আন্ডারআই জেল লাগিয়ে তারপর অন্যান্য প্রোডাক্ট ব্যবহার করুন। দিনের বেলা সানস্ক্রিনও জরুরি। পাশাপাশি অবশ্যই সানগ্লাস ব্যবহার করুন। আর দিনে অন্তত দুইবার চোখের চারপাশের ত্বক পরিষ্কার করুন। গরমকালে অনেকেই ত্বক পরিষ্কার করতে ওয়েট ওয়াইপস ব্যবহার করেন। যা খুব একটা মসৃণ হয় না। ফলে বেশি চাপ দিলে চোখের চারপাশের ত্বক ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে। এর পরিবর্তে ভিজে কটন প্যাড ব্যবহার করতে পারেন।

ঠান্ডা গ্রিন টি ব্যাগ, কিউকাম্বার জেল বা অ্যালোভেরা জেল চোখের ওপর লাগিয়ে রাখতে পারেন। এ ধরনের কুলিং জেল আঙুলে করে পুরো চোখের ওপর এবং চারপাশে সার্কুলার মোশনে ম্যাসাজ করুন মিনিটতিনেক। ন্যূনতম প্রেশার দেবেন। দ্রুত ফল পাবেন।

ডার্ক সার্কল কমাতে, কফিগুঁড়া অল্প অলিভ অয়েলের সঙ্গে মিশিয়ে চোখের নিচে লাগিয়ে রাখুন। গ্রিন টি এবং অলিভ অয়েল লাগালেও উপকার পাবেন। মিনিটপনেরো রেখে ধুয়ে নিন।